Home অফবিট পাঁচমিশালি আসুন চিন্তা করি বিজ্ঞান কি এই অভিশপ্ত কাহিনী মেনে নিবে???

আসুন চিন্তা করি বিজ্ঞান কি এই অভিশপ্ত কাহিনী মেনে নিবে???

আজ আমি আপনাদের বলবো কিছু অভিশাপ্ত জিনিসের কথা ,যা শুনলে আপনার লোম দারিয়ে যাবে।
কিছু কিছু জিনিস রয়েছে যা বরই অভিশাপ্ত । অনেকে এগুলো বিশ্বাস করবেন নাহ কিন্তু এটা সত্যিই যে এগুলো হয়েছে

Web content writing training Online

প্রথম যে জিনিসটির কথা বলব এটি হচ্ছে , রক অফ গেটিসবার্গ। ১৮৬৩ সালে যে একটি যুদ্ধ হয় তার অন্যতম একটি যুদ্ধ হচ্ছে গেটিসবার্গের যুদ্ধ।
এই যুদ্ধের স্বরনেই এখন তৈরী করা হয়ছে আমেরিকান ন্যাশনাল পার্ক। এখানে রয়ছে কিছু পাথর যা সবাই জানেন না যে এই পাথর গুলোর উপর কিছু
অভিশাপ রয়েছে। । অনেকে আছে ঘুরতে গোপনে এই কালো পাথর নিয়ে গেছে এবং নিজ দায়িত্যে রেখেও গেছে। যারা যারা এই পাথর নিয়ে গেছিলো
তারা জানান তাদের জীবনে নানান বিপদ এসে পরেছিল যার ফলে তারা পাথর রেখে যেতে বাদ্ধ হয়। এর ভিতর একটি লোক নিজের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে।
পরবর্তিতে নানান অপকর্মে জরিয়ে পরে। যার ফলে তাকে তার ফ্যামিলিকে রেখে জেলে জীবন কাটাতে হয়।

পরবর্তি যে জিনিসটি রয়েছে সেটা হচ্ছে বাসানো ফুলদানি, চলুন তাহলে ইতালির এই বাসানো ফুল দানির কাহীনি শুনি।
এই ফুলদানিটি একটি বিয়ের কোনেকে দেয়ার জন্য অর্ডার করে বানানো হয় । ঐ রাতে সেই বিয়ের কোনেটি মারা যায়
এবং তার হাতের ভিতর তখন ওই ফুলদানিটি ছিল এবং একটি চিঠি ছিল যাতে লেখা ছিল আমি বার বার ফিরে আসবো আমার
খুনের প্রতিশোধ নেয়ার জন্য। পরবর্তিতে এটি তার ফ্যামিলিতেই রাখা হয় । কিন্তু আশ্বচর্য জনক এই যে যার কাছেই এটা যার কাছেই
ছিল সে অদ্ভুত ভাবে মারা গেছে। পরে এটাকে লুকিয়ে রাখা হয়। কিন্তু এটাকে লুকিয়ে রাখলেও ১৯৮৮ সালে এই ফুলদানিকে পুনরায় খুজে
পাওয়া যায়। এবং যেই এই ফুলের মালিক হয়েছে সেই অদ্ভুত ভাবে মৃত্যু বরন করেন। পরে এটাকে আর কেউ নিজের কাছে রাখতে চায়নি ।
এমনকি কোনো জাদুঘরও এটাকে রাখতে অস্বকার করে । এরপর বিজ্ঞানিরা এটাকে এমন ভাবে লুকিয়ে রেখেছেন যাতে করে পরবর্তিতে যেন এটাকে আর কেউ
আবিস্কার করতে না পারে।

এর পর যেটার কথা বলবো এটা হচ্ছে ক্রাইং বয় পেইন্টিং, এটা করেছিলেন জিউয়ানি ব্রেকম্যান। ১০ হাজারেরও বেশি তিনি এই ছবি একেছিলেন।
যার প্রত্যাকটি কপিই বিক্রি হয়েছিল। কিন্তু এই ছবির ভিতরও ছিল অভিশাপ্ত কিছু। হ্যা আপনি এখন ভাবতে পাড়েন এটাও কি স্বম্ভব ?
হ্যা এটাই হয়েছে, রন হল নামে এক দম্পত্তি জানায় ১৯৮৫ সালে তাদের ঘরে আগুন লেগে গেলে সব পুড়ে যায় শুধু এই ছবি ব্যাতিত।
যারা যারা এটা কিনেছিল সবার সাথেই এমনটা হয়েছে। যারা যারা এই খবর শুনে ছবিকে নস্ট করে দিয়েছে তাদের সাথে ও অমনটাই হইয়েছে।
আসলে ব্যপার হচ্ছে আপনি যদি ছবিটি একবার কিনে থাকেন তাহলে আপনি এই ছবির কাছে পুরোপুরি হেরে গেছেন।

 

আরো পড়ুনঃ কপাল খুলে গেলো আর্চারের আর কপাল পুরলো উইলির

100% Free Domain Hosting - Dreamhost banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

সাফাই কর্মী ছাঁটাই নিয়ে বিক্ষোভ, উত্তেজনা মালদা মেডিক্যাল কলেজে

আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে এইসব সাফাই কর্মীরাই নিজেদের জীবন বাজি রেখে হ…