ভোটার কার্ড
Home বিশেষ খবর ভোটার কার্ড এখন তৈরী করে ফেলতে পারবেন অনলাইনেই বাড়িতে বসে!দেখে নিন উপায়
বিশেষ খবর - May 29, 2019

ভোটার কার্ড এখন তৈরী করে ফেলতে পারবেন অনলাইনেই বাড়িতে বসে!দেখে নিন উপায়

একটি মানুষ যে কোন দেশের নাগরিক তা বোঝা যায় তার ভোটার কার্ড দেখে।এটি হল একটি মানুষের নাগরিকত্বের প্রমাণ পত্র। প্রত্যেকটি মানুষেরই নিজস্ব নাগরিকত্বের প্রমান থাকা জরুরি।এটি নাগরিকত্বের একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। কিন্তু এখনো অনেক মানুষ আছেন যাদের ভোটার কার্ড নেই। কেউ কেউ স্ব-ইচ্ছায় বানান নি আবার কেউ কেউ হয়তো জানেন না কিভাবে তা বানাতে হয়। কোনো কোনো মানুষ বানানোর পদ্ধতি জেনেও হয়ত ছুটোছুটির ভয় ভোটার কার্ড বানাচ্ছেন না।কিন্তু এখন ঘরে বসেই অনলাইনে আপনি সহজেই বানিয়ে নিতে পারবেন আপনার নিজের ভোটার কার্ড। শুধু ভোটার আইডি বানানোই নয় আপনার যদি সম্প্রতি ঠিকানা বদল হয়ে থাকে তাহলেও আপনি অনলাইনের মাধ্যমে ট্রান্সফার করে নিতে পারবেন নিজের ভোটার কার্ড।

Web content writing training Online

অনলাইনে ভোটার কার্ডের জন্য আবেদন করতে বসার আগে আপনাদের কিছু ডকুমেন্টস জোগাড় করে রাখতে হবে।আবেদন করার সময় আপনার ছবির স্ক্যান কপি, বয়সের প্রমাণপত্রের স্ক্যানকপি যোগাড় করে রাখতে হবে। এছাড়াও লাগবে আপনার ঠিকানা প্রমাণ।অনলাইনে ফর্মটি ফিল-আপ করতে বসার আগে এই সমস্ত ডকুমেন্ট স্ক্যান করে হাতের কাছে রাখুন।অনলাইনে ফর্মটি ফিল-আপ করার সময় এই গুলো আপনাদের আপলোড করতে হবে।

কিভাবে আপনি অনলাইনে আপনার ভোটার কার্ড তৈরি করতে পারবেন কিংবা আপনার ভোটার কার্ড ট্রান্সফার করতে পারবেন এখন জেনে নিনঃ

Source: Collected

১। খুবই সহজেই এই কাজটি করা যায়। আপনাকে শুধু জানতে হবে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট। নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটটি হল http://www.nvsp.in । আপনাকে প্রথমে এই ওয়েবসাইটে ঢুকতে হবে। এটি হলো নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট।

২। এই ওয়েবসাইটটিতে ঢোকার পর আপনাকে ক্লিক করতে হবে রেজিস্ট্রেশন ফর নিউ ভোটার আইডি কার্ড অপশনে।আর আপনি যদি আপনার ঠিকানা বদল এর জন্য ভোটার আইডি কার্ড ট্রান্সফার করাতে চান তাহলে আপনাকে ক্লিক করতে হবে ডিউ টু শিফটিং ফ্রম এনাদার কনস্টিটিউন্সি এই অপশনে।

৩। এই অপশনে ক্লিক করার পর আপনার উইন্ডোতে ফর্ম ৬ খুলে যাবে।ফর্মটি আপনাকে সাবধানে ফিল-আপ করতে হবে। আপনি এই ফর্মটি ফিল-আপ করার জন্য নিজের পছন্দ মত ভাষা বাছতে পারবেন।ফর্মটি ফিল-আপ করার সময় খুব সাবধানে ফিলাপ করবেন কারণ আপনি এখানে যা যা নিজের সম্পর্কে তথ্য দেবেন সেটি আপনার ভোটার কার্ডের ছাপা হবে।

৪। ফর্মটি ফিল-আপ করা হয়ে গেলে সেটিকে এবার সাবমিট করে দিন।এরপর আপনার এই ফর্মটি চলে যাবে ইলেকশন কমিশনের কাছে। ইলেকশন কমিশনের অফিসার আপনার আপলোড করার সমস্ত তথ্য প্রমানগুলো যাচাই করে দেখবেন। আপনার সমস্ত ডকুমেন্ট যদি ঠিকঠাক থাকে তাহলে আগামী এক মাসের মধ্যে আপনার ভোটার আইডি কার্ড এসে যাবে আপনার বাড়ির দরজায়। ইলেকশন কমিশন থেকে আপনার ভোটার আইডি কার্ড পোস্ট এর মাধ্যমে আপনার বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে।

এখন জানা হয়ে গেল নির্ঝঞ্ঝাট উপায়ে অনলাইনের মাধ্যমে বাড়িতে বসেই আপনার ভোটার কার্ড বানিয়ে নেওয়ার পদ্ধতি। তবে আর দেরি না করে শীঘ্রই বানিয়ে ফেলুন আপনার গুরুত্বপূর্ণ নাগরিকত্বের প্রমাণ পত্র এবং যাদের নেই তাদের সাহায্য করুন এটি বানিয়ে ফেলতে। দেশের নাগরিক হিসেবে এটিও আপনার একটি কর্তব্য। কর্তব্য পালন করুন এবং দেশের একজন সুনাগরিক হয়ে উঠুন।

আরও পড়ুনঃবিদ্যুতের বিল আসছে আকাশছোঁয়া?- দেখে নিন বিদ্যুতের বিল বাঁচানোর দশটি উপায়!

100% Free Domain Hosting - Dreamhost banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

১৫ ফুট নিচে সেতু থেকে পিছলে পরে ২৯ জনের মৃত্যু যমুনা এক্সপ্রেসওয়েতে !

১৫ ফুট নিচে সেতু থেকে পিছলে পরে ২৯ জনের মৃত্যু হলো সোমবার সকালে | ঘটনাটি ঘটে দিল্লির কাছে …