আজকাল শিশুদের প্রধান সমস্যা হয়ে দারিয়েছে অরূচি বা পুস্টিকর খাবার না খাওয়া। বেশিরভাগ বাবা-মায়ের অভিযোগ শিশু পুষ্টিকর খাবার খেতে চায় না। শিশুদের ওজন কমে যাচ্ছে এবং অন্যতম কারন হচ্ছে এটি না খাওয়া।এছাড়াও পুস্টিকর খাবার না খাওয়ার কারনে শিশুরা বিভিন্ন ধরনের অপুস্টিজনিত রোগে ভুগছে ।

Web content writing training Online

যুক্তরাজ্য জুড়ে, শিশুদের স্থূলতা সম্প্রতি রেকর্ড পরিমাণে দাঁড়িয়েছে। আর স্থূলতার এই প্রবণতা একটি শহরে সবচেয়ে বেশি।

তবে সাম্প্রতিক এক জরিপ থেকে জানা যায় যে, শহরটি শিশুদের স্থূলতার হার ৬.৪% কমাতে সক্ষম হয়েছে। স্থূলতার মোকাবেলা করার জন্য দেশটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল প্রি-স্কুল শিশুদের ওপর মনযোগ দেয়া। এছাড়া সুস্থ থাকার বিষয়ে শিশুদের উৎসাহী করতে বাবা মায়েদের ক্লাস করানো।

তবে যা কিছুই হোক না কেন শিশুদের পুষ্টিকর খাবারের প্রতি রুচি বাড়াতে হবে। কারণ শিশুরা যদি পুষ্টিহীনতায় ভোগে তবে তাদের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যহত হবে।

আসুন যেনে নেয়া যাক কিভাবে শিশুর রূচি বাড়াবো——

#  শিশুদের একই খাবার প্রতিদিন খাওয়াবেন না। সপ্তাহে সাতদিন শিশুর খাবারের রেসিপি তৈরি করুন।

#  শিশুদের পছন্দমতো খাবার বেছে নেয়ার সুযোগ দিতে হবে। এতে শিশুর খাবারের চাহিদা বাড়বে।

#  মাকে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেতে হবে। মাকে দেখে শিশু ওই খাবার খাওয়ার অভ্যাস রপ্ত করবে।

#  শিশুদের জোর করে খাওয়াবেন না।

#  আপনি যদি কোনো খাবার অপছন্দ করেন তবে তা শিশুর সামনে বলবেন না।

#   শিশুরা পছন্দ করে এমন খাবার খেতে দিন।

#  স্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতি উৎসাহিত করতে শিশুদের পার্কে নিয়ে যাওয়ার কথা বলতে পারেন।

#  খাবার খাওয়ানোর সময় গল্প, কবিতা ও ঘুরতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলুন।

#  শিশুর মধ্যে একসঙ্গে খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

#  স্থ্যকর খাবার খাওয়ার জন্য পুরস্কার দিন ও প্রশংসা করুন।

সূত্র : বিবিসি

100% Free Domain Hosting - Dreamhost banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

পুজো হবে, নাকি হবে না ! দোটানায় কলকাতার আবাসনের দুর্গা পুজো !

 হবে, নাকি হবে না? কলকাতার আবাসনে এটাই পুজোর ভাবনা। আবাসনের অনেক আবাসিক দোটানায়! কেউ কেউ …