অ্যাম্বার ব্রাউন ও মিডনাইট ব্ল্যাক কালারে লেদার ফিনিশড্ ডিজাইনের এই ওয়াই ম্যাক্স ফ্যাবলেট এ মিলছে বাজারে ।

Web content writing training Online

হুয়াওয়ে অনুমোদিত সকল ব্র্যান্ডশপে ফ্যাবলেটটি কিনতে পাওয়া যাচ্ছে। দাম ২৬ হাজার ৯৯৯ টাকা।

হুয়াওয়ে কনজ্যুমার বিজনেস গ্রুপ বাংলাদেশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে হয়েছে, স্মার্টফোন আর ট্যাবলেটের সমন্বয়ে তৈরি ফ্যাবলেট নামে পরিচিত হুয়াওয়ের নতুন এ ডিভাইসে থাকছে ‘সুপার লার্জ’ ডিউড্রপ ডিসপ্লে, বড় ব্যাটারি, উন্নত প্রসেসরসহ শক্তিশালী র‌্যাম।

ঈদ উপলক্ষে হুয়াওয়ের অনুমোদিত নির্দিষ্ট ব্র্যান্ডশপ থেকে ডিভাইসটি কিনলে ফ্রি গিফট হিসেবে মিলবে  হেডফোন ও গ্রামীণফোণের ডেটা বান্ডেল অফার।

প্রিমিয়াম কোয়ালিটির ভিডিও এক্সপেরিয়েন্সের জন্য এ ফ্যাবলেটে রাখা হয়েছে ৭.১২ ইঞ্চির ডিউড্রপ ডিসপ্লে। ডিসপ্লে যাতে বেশি জায়গাজুড়ে থাকে তাই এতে স্ক্রিন টু বডি রেশিও রাখা হয়েছে ৯০ শতাংশ। এছাড়াও ফ্যাবলেটটির রেজ্যুলেশন হবে ফুল এইচডি প্লাস।

ফলে নেটফ্লিক্স, ইউটিউব বা গেমিংয়ের ক্ষেত্রে দুর্দান্ত ভিউ পাওয়া যাবে বলে দাবি করছে হুয়াওয়ে।

ডিভাইসটি সম্পর্কে হুয়াওয়ে কনজ্যুমার বিজনেস গ্রুপ (বাংলাদেশ) এর কান্ট্রি ডিরেক্টর কেলভিন ইয়াং বলেন, “বড় ডিসপ্লে, গেমিং সুবিধার কারণে ফ্যাবলেট জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। যারা গেম খেলতে ভালোবাসেন, ভিডিও দেখতে ভালো অভিজ্ঞতা পেতে চান মূলত তাদের জন্য ডিভাইসটি এনেছি। আশা করি আমাদের অন্য ডিভাইসগুলোর মতো এ ফ্যাবলেটটিও গ্রাহকদের প্রত্যাশা পূরণ করবে।”

ডিভাইসটিতে ব্যাটারি ব্যাক-আপের অনাকাঙ্খিত ঝামেলা দূর করতে ব্যবহার করা হয়েছে ৫ হাজার মিলি অ্যাম্পিয়ারের শক্তিশালী ব্যাটারি। ফ্যাবলেটে ব্যবহার করা হয়েছে ৪ জিবির শক্তিশালী র‌্যাম, থাকবে ১২৮ জিবির রম সুবিধা। এছাড়াও কম শক্তি ব্যয় করে ভালো পারফরমেন্সের জন্য ফ্যাবলেটটিতে আছে কোয়ালকম স্নাপড্রাগন ৬৬০ প্রসেসর।

আকর্ষণীয় ছবি পেতে ফ্যাবলেটটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল এবং ২ মেগাপিক্সেলের দুটি এআই রিয়ার ক্যামেরা। এছাড়াও সেলফির জন্য রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের একটি ক্যামেরা।

100% Free Domain Hosting - Dreamhost banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

২৩৩ কোটি ২১ লক্ষ ২৬ হাজার ১৪০ টাকা! ক্রিস্টির নিলামে এত দর কেন উঠল ডাইনোসরের?

কারণটা কি নেহাতই জিনিসটা দুষ্প্রাপ্য বলে? ১৯০২ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত খোঁড়াখুঁড়ি করে সাকুল্…