মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায়
Home লাইফস্টাইল মাথা যন্ত্রনায় অস্থির? দেখে নিন চটজলদি মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায় !

মাথা যন্ত্রনায় অস্থির? দেখে নিন চটজলদি মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায় !

মাথাযন্ত্রনা হল সবচেয়ে পুরোনো এবং বিরক্তিকর রোগ।যাদের এই মাথাযন্ত্রনার প্রবণতমা আছে তারা জানেন মাথায় অসহ্য যন্ত্রনা হলে কিছুই করার মন থাকে না, থাকে না খাওয়ার রুচি।কিন্তু এই ব্যস্ত সমস্ত জীবনে বিছানায় বিশ্রাম করারও সময় নেই। তাই ব্যস্ত কাজের সময়ের মধ্যে চটজলদি এই যন্ত্রনার পিছু ছারাবার জন্য রইল কিছু মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায় ।

Web content writing training Online

পরবর্তীতে দেখুন –খুশকির উৎপাতে নাজেহাল? দূর করার উপায় জেনে নিন

দেখে নিন মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায় গুলো –

এমনিতে মাথা যন্ত্রনা হলে তা সারাবার জন্য রয়েছে বহু ওষুধ।কিন্তু ডাক্তাররা বলেন যে এই সমস্ত ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও থাকে যথেষ্ট বেশী। তাই সবসময় মাথাব্যথা হলেই এই ওষুধ গুলো সেবন করা উচিৎ নয়।এই ওষুধ গুলো খাওয়ার বদলে নীচে দেওয়া উপায়গুলো অবলম্বন করতে পারেন।

ক) কিছুক্ষনের জন্য চোখ বন্ধ করে বিশ্রাম নিনঃ

মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায়

মাইগ্রেন থেকে যে মাথাযন্ত্রনা হয় কিংবা টেনশন থেকেও যে মাথাযন্ত্রনা হয় তা উপশমের জন্য এই প্রক্রিয়া হল মোক্ষম ওষুধ।খুব মাথাযন্ত্রনা হলে একটি নিস্তব্ধ ঠান্ডা অন্ধকার ঘরে চোখবন্ধ করে কিছুক্ষন চুপ করে বসে থাকুন।সাধারণত যাদের মাইগ্রেন আছে তাদের মাথায় যন্ত্রনা হলে তারা সাধারণত কোনো অন্ধকার ঘরে নিশ্চুপ ভাবে বিশ্রাম করাটাই পছন্দ করেন।এবং এতে কাজ দেয়ও বেশ ভালো।ডাক্তারদের মতে, অন্ধকার ঘরে একা চুপ করে বসে বিশ্রাম নিলে তা মাথাব্যথাকে কমিয়ে দিতে বা একেবারে সারিয়ে দিতে সাহায্য করে।

খ) ঘাড় এবং কপালের দুপাশ ভালো করে মালিশ করুনঃ

মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায়
ঘাড় ও কপালের দুপাশ ভালোভাবে মালিশ করলে তা রক্ত প্রবাহ বাড়াতে সাহায্য করে।শরীরে রক্ত প্রবাহ বেড়ে গেলে টেনশন থেকে যে মাথাব্যথা হয় তা সহজেই সেরে যায়।

গ) ঘাড়ে গরম অথবা ঠান্ডা সেক দিনঃ

মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায়
মাথা যন্ত্রনা উপশমের জন্য ঘাড়ে হটপ্যাডের মাধ্যমে গরম সেক দিতে পারেন।এতে খুব তাড়াতাড়ি কাজ দেয়।যদি গরম সেকে কাজ না দেয় তবে আইসপ্যাক ব্যবহার করে ঠান্ডা সেকও দিতে পারেন।

ঘ) কাজের মধ্যেও সময় বার করে বিশ্রাম করুনঃ


  1. শরীর যন্ত্র নয়।তাই সে একনাগাড়ে কাজের ধকল নিতে পারে না।শরীরকে মাঝে মাঝে বিশ্রাম দিন।মাথা ব্যথা করলে ধ্যান করার চেষ্টা করুন।চোখ বন্ধ করে গভীর নিশ্বাস নিন এবং কোনো শান্তির দৃশ্য মনের মধ্যে কল্পনা করুন। ধ্যান করাকালীন কাজের কথা চিন্তা করবেন না।এটি করলে আমাদের পেশীকে আরাম পায় ফলে মাথাযন্ত্রনাও ধীরে ধীরে কমে যায়।

ঙ) মানসিক চাপ কম রাখার চেষ্টা করুনঃ

মাথাযন্ত্রনা উপশমের উপায়
আপনি যদি অসহ্য মাথাযন্ত্রনার শিকার হন তবে মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।মাথা অসহ্য যন্ত্রনা করলে কাজ থেকে পারলে তাড়াতাড়ি ছুটি নিন কিংবা আপনি যদি গৃহবধূ হয়ে থাকেন ঘরের কাজের দায়িত্ব কিছুক্ষনের জন্য অন্য কারোর হাতে ছেড়ে দিয়ে বিশ্রাম করুন।শব্দমুখর যায়গা থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।

চ)খাদ্যাভ্যাস ঠিক রাখুন এবং পর্যাপ্ত পরিমানে জল পান করুনঃ


মাথাযন্ত্রনা উপশমের আরো একটি উপায় হল সঠিক খাদ্যাভ্যাস বজায় রাখা। বাইরের খাবার এবং ভাজাভুজি বেশী খাওয়া বন্ধ করুন। এছাড়াও বেশী মাত্রায় কফি খেলেও শরীরে ভিষন ক্ষতি হয়। যাদের মাইগ্রেন আছে তারা দয়া করে এলকোহল এড়িয়ে চলুন। ধুমপান করাও মাইগ্রেন এর ব্যাথার কারণ হতে পারে।যাদের রক্তে শর্করার মাত্রা কম আছে ডক্তাররা তাদের পেট খালি না রাখার উপদেশ দিয়েছেন।বিশেষ করে তাদের জন্য সকালে পর্যাপ্ত পরিমানে খাবার গ্রহন করা জরুরি।

মাথাব্যথা আপনার সবকাজে বাধা সৃষ্টি করে ঠিকই।তবে এর উপশমের জন্য সঠিক প্রক্রিয়া অবলম্বন করলে তা চটজলদি সারানোও সম্ভব হয় এবং একে সারাদিন বয়ে বেড়াতেও হয় না। তবে আপনার মাথাব্যথা যদি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পায় এবং তা যদি ঘন ঘন হয় তবে অবশ্যই ডাক্তারে পরামর্শ নিন। এতে বড় সমস্যার হাত থেকে আপনি রক্ষা পাবেন।

 

 

 

 

100% Free Domain Hosting - Dreamhost banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

খুব বেশি কফি খান? খুব সাবধান, দেখা দিতে পারে এই সমস্যাগুলি

এক-আধ কাপ খেলে কোনও সমস্যা নেই, কিন্তু মাত্রাতিরিক্ত কফি পান করলে কী কী হতে পারে সেটা একবা…